Breaking News
বইমেলা

অনুচ্ছেদ: বইমেলা

বইমেলা

বই মানব সভ্যতার অন্যতম প্রাণসত্তা। বই মানুষকে পূর্ণতা দেয়; জীবনকে করে সমৃদ্ধ। বইমেলা প্রত্যেক জাতির সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের অংশ। বইমেলাকে কেন্দ্র করে লেখক, প্রকাশক, পাঠক সকলের মাঝেই একটা উৎসবমুখর আমেজ বিরাজ করে। মানুষের মধ্যে বই সম্পর্কে আগ্রহ সৃষ্টি, বই পাঠের ব্যাপক প্রসার, মননশীলতা বৃদ্ধিতে বইমেলা অর্থবহ ভূমিকা পালন করে থাকে। বিশ্ব ইতিহাসে ১৮০২ সালে ম্যাথু কেরির উদ্যোগে প্রথম বইমেলার আসর বসে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরে। প্রায় ত্রিশ হাজার বই নিয়ে ১৮৭৫ সালে নিউইয়র্কের ক্লিনটন শহরে প্রায় একশ জন প্ৰকাশক আয়োজন করে বৃহৎ এক বইমেলার। ১৯৪৯ সালে শুরু হয় জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টের বৃহৎ বইমেলা। বাংলাদেশে বইমেলার ইতিহাস খুব দীর্ঘ নয়। ১৯৭২ সালে মুক্তধারা প্রকাশনীর কর্ণধার চিত্তরঞ্জন সাহা নিজের উদ্যোগে প্রথম বইমেলার আয়োজন করেন। ১৯৭৮ সালে বাংলা একাডেমি, পূর্ণাঙ্গ প্রাতিষ্ঠানিক বইমেলার আয়োজন করে। ১৯৮৫ সাল থেকে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত বইমেলার নাম দেওয়া হয় ‘একুশে বইমেলা’। ২০১৪ সাল থেকে বইমেলা বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ ছাড়িয়ে পাশ্ববতী সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যান পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। এই মেলা এখন বাঙালির প্রাণের মেলায় পরিণত হয়েছে। লেখক, প্রকাশক ও লক্ষ লক্ষ পাঠক সমাজ এ মেলার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন। প্রতি বছর ফেব্রুয়ারি মাস জুড়ে চলে এই বইমেলা। এ মেলাতেই মিলন ঘটে লেখক-পাঠকের, প্রকাশক লেখকের। বইমেলার উৎসবে যোগ দিয়ে পাঠক পরিচিত হন নিত্য নতুন বইয়ের সঙ্গে। বিচিত্র লেখকের, বিচিত্র বর্ণের, বিচিত্র বিষয়ের উন্নতমানের বই মন কেড়ে নেয় পাঠকদের। বইয়ের প্রতি তাদের আকর্ষণ বাড়ে; তৈরি হয় বই কেনার মানসিকতা। সর্বসাধারণকে পাঠমুখী করা এবং মননশীল জাতি গঠনের ক্ষেত্রে বইমেলার গুরুত্ব অপরিসীম।

পড়ুন → বিশ্ববিদ্যালয়
পড়ুন → বৈশাখী মেলা

About admin

Check Also

ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়

ভাব-সম্প্রসারণ: ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়;
পূর্ণিমা-চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি।

ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়;পূর্ণিমা-চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি। ভাব-সম্প্রসারণ: অগ্ন তৃপ্ত মানুষের মন প্রেম ও সৌন্দর্যের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *